বিশ্বের সবচেয়ে অবিশ্বাস্য পাঁচটি বিল্ডিং

যেকোনো ভবন নির্মাণ করা কিন্তু এতটা সহজ কাজ নয়। ভবন নির্মাণ করার আগে এর ডিজাইন এমনভাবে তৈরি করা হয় যাতে মধ্যাকর্ষণ শক্তি এই ভবনকে নাড়াতে না পারে।

আপনি হয়তো বিশ্বাস করবেন না একটা ভালো ডিজাইন তৈরি করতে আর্কিটেকচার দের অনেক পরিশ্রম করতে হয়।

কিন্তু আজ আমরা এই পোস্টে যা পড়বেন তা দেখে হয়তো আপনি অবাক হয়ে যাবেন কিন্তু যা পড়বেন তা একেবারেই সত্যি।

The floating Barn

দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ডের তৈরি করা দা ফ্লোটিং বার্ন দেখে সবাই চমকে যায়। আপনি যদি এটা দূর থেকে দেখেন তাহলে আপনার মনে হবে যেন এটা ভেঙে যাবে।

এই ঘরের চারপাশে অনেক সুন্দর মনোরম দৃশ্য দেখতে পাওয়া যায়। কিন্তু এই ঘরে একটা জিনিস সব সময় লক্ষ্য রাখতে হয় এই ঘরে প্রবেশ করার লোকজনদের দুই পাশেই সমান ভাবে থাকতে হয়।

কারণ কম বেশি হলে এই ঘর যেকোনো একদিকে ঝুকে যাবে। এটা তৈরি করার জন্য আর্কিটেকচাররা অনেক পরিশ্রম করেছে এই পুরো ঘরটি 100 ফিট লম্বা। এই ঘরে চারটি আলাদা আলাদা কক্ষ নির্মাণ করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ মারিয়ানা ট্রেঞ্চের গভীরে থাকা 5টি আজব প্রাণী

Timmelsjoch Experience Pass Museum

কংক্রিটের এই পাথরটি দেখে মনে হয় এই পাথরটিকে কেউ উপর থেকে নিচে ফেলেছে আর এটা এখানে এসে আটকে গেছে অনেক মানুষ তো এর ভিতরে প্রবেশ করে না।

কিন্তু আসলে এটা অনেক চিন্তাভাবনা করে ডিজাইন করে নির্মাণ করা হয়েছে। এটা আসলে রহোটসের 50 বছর পূর্তিতে নির্মাণ করা হয়েছিল। এই বিল্ডিংটির চারো দিকে লাগানো রয়েছে।

এর ভেতরে বরফের মোটা দেয়াল সবসময় জমে থাকে। এটা সমুদ্র থেকে 8231 ফিট উপরে নির্মাণ করা হয়েছে। এটা বাহির থেকে দেখলে আপনিও এর ভেতরে যেতে চাইবেন না।

Flying mud boat

এটা দেখতে আসা লোকজন সবসময় একটা জিনিস নিয়ে খুবই ভয় পায়। তারা এটা দেখেই মনে করে যে এটা কখন যেন তাদের মাথায় এসে পড়ে। কিন্তু এই স্ট্রাকচারটিও মধ্যাকর্ষণ শক্তিকে মাথায় রেখেই  মহাকর্ষীয় শক্তি কে ধোকা দেওয়ার জন্য বানানো হয়েছে। জাপানের একজন বিখ্যাত আর্কিটেকচার এটা ডিজাইন করেছে। এই ভারী স্ট্রাকচার ৪টি তারের সাহায্যে চারটি কাঠের খুটির সাথে বাধা হয়েছে।

এর ভেতরে যেতে হলে আপনাকে সিঁড়ি সাহায্য নিতে হবে। এটা বানানো অনেক কষ্টের কাজ ছিল। কিন্তু আর্কিটেকচার এটা এমনভাবে নির্মাণ করেছেন যাতে বাতাস যেদিক থেকে আসুক না কেন  এটার উপর কোন প্রভাব ফেলতে না পারে। আর এই র্বোটটি নির্মাণ করার জন্য আর্কিটেকচার সব প্রাকৃতিক ইকুপমেন্ট ব্যবহার করেছে।

Too high tea house

জাপানে বসবাস করার লোকজন আসলেই অনেক অদ্ভুত। তারা কখন কি বানিয়ে ফেলে তা কেউ বলতে পারবে না। যেমন এটা দেখুন এই ক

ঘরটির নাম টাইগা সুখী টি হাউস।

এই ঘরটি ডিজাইন করেছেন জাপানে ডিজাইনার তরুনোবু। এই পুরো ঘরটি একটা শুকনো গাছের উপর নির্মাণ করা হয়েছে। আপনি বিশ্বাস করবেন কিনা জানিনা এই ছোট্ট একটি পরিবার বাস করে।

এটা আসলে ট্টি হাউজ না এটা আসলে এই টি হাউজ।  কারণ এখানে ঘুরতে আসার লোকজনদের এই ঘরে বসবাস করার লোকজনরা উপরে ডেকে নিয়ে এসে চা পান করায়।

এই ঘরে এখন পর্যন্ত কেউ জুতা স্যান্ডেল নিয়ে প্রবেশ করেনি। এই ঘরে যেতে হলে আপনাকে আপনার জুতা-স্যান্ডেল নিচে খুলে রেখে যেতে হবে।

Wozpco apartments

নেদারল্যান্ডে নির্মাণ হওয়ায় এই অ্যাপার্টমেন্টটি কখনোই নকশা করে ডিজাইন করা হয়নি। কারণ এই বিল্ডিং টি ভুল করে নির্মাণ করা হয়েছে। 1994 সালে যখন এখানে প্রথম বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়  তখন  এটার মালিক এই বিল্ডিংয়ে ৮৭ টি ঘর নির্মাণ করার কথা চিন্তা করেছিল। কিন্তু যখন বিল্ডিং নির্মাণ করা হয় তখন মালিক এতে আরও 13 টি ঘর নির্মাণের ডিমান্ড করে।

আর পরিণামে ডিজাইনাররা এমন একটি ডিজাইন করে ফেলে যা কখনোই কেউ চিন্তা করেনি।  কিন্তু মজার বিষয় হল এই 100 টি ঘর এমন ভাবে বানানো হয়েছে যাতে প্রত্যেকটি ঘরে প্রাকৃতিক আলো-বাতাস প্রবেশ করে।

এই পোস্টটি আপনাদের কেমন লাগলো তা কমেন্ট করে জানাবেন ভালো লাগলে শেয়ার করবেন।

Leave a Comment