কি করবেন যদি ভয়ঙ্কর পিরানহা আপনাকে ঘিরে ধরে?

আজ আমরা এই পোস্টে কথা বলবো যদি আপনি কোন নদী, সমুদ্র বা ডোবায় সাঁতার কাটতে থাকেন আর তখন আপনার পেছনে অনেকগুলো পিরানহা আসতে দেখেন তখন আপনি কিভাবে বাঁচবেন?

আপনি বাচবেন কেন কারণ আপনাকে বেঁচে থাকতে হবে। আপনাকে পিরানহার কাছ থেকে বাঁচতে হবে কেন? কারণ পিরানহা কে পৃথিবীর সবচেয়ে ভয়ঙ্কর মাছের মধ্যে একটি বলে মানা হয়।

যখন একটি পিরানহা এগ্রেসিভ হয়ে যায় অথবা ক্ষুধার্ত হয় তখন পিরানহা সবকিছু খেয়ে ফেলতে পারে।

পানিতে অবস্থিত অন্য কোন মাছকে অথবা একটি পিরানহা আরেকটি পিরানহা কে এমনকি মানুষ কেউ খেয়ে ফেলতে পারে।

এমন অনেক ঘটনা জানা গেছে আবার অজানা এমন অনেক ঘটনা রয়েছে যেখানে অনেকগুলো পিরানহা মিলে একজন মানুষকে কঙ্কালে পরিণত করে দিয়েছে কয়েক মিনিটের মধ্যে। শুনে ভয় লাগছে ঠিক না?

পিরানহা কে এত ভয়ঙ্কর করে তোলে তাদের চোয়াল ও ধারালো দাঁত। সাথে তাদের এগ্রেসিভ আচরণ। পিরানহার অনেক প্রজাতি বর্তমানে জীবিত রয়েছে। জীবিত পিরানহার মধ্যে সবথেকে ভয়ঙ্কর ব্ল্যাক পিরানহা।

এই হল ক্যাবলার যা দিয়ে বুলেটপ্রুফ জিনিসপত্র বানানো হয়।  একটি ব্ল্যাক পিরানহার ক্যাবলার কাটতে সময় লাগে মাইক্রো সেকেন্ড(০.০০০০০০১)। এক নিউটন ফোর্স মাত্র এক সেকেন্ড।

আরও পড়ুনঃ গন্ডার যখন ক্রাশ?

কারো শরীর থেকে 1 কিলোগ্রাম মাংস কেটে সেটাকে 1 মিটার দূরে টেনে নিয়ে যেতে পারে ব্ল্যাক পিরানহা যা কিনা এখনো পৃথিবীতে রয়েছে। এরা কোন জিনিসকে কাটার জন্য 320 নিউটন ফোর্স লাগায়।

হিস্টোরিক্যাল মনস্টার ডাইনোসর কাউকে কামড়াতে কাটার জন্য 57000 নিউটন ফোর্স ব্যবহার করত তাদের চোয়ালে। আরেকটি অসাধারণ মনস্টার মেঘলাডন যারা কিনা কোন জিনিসকে কাটার জন্য  আনুমানিক এক লক্ষ আশি হাজার নিউটন ফোর্স ব্যবহার করত তাদের চোয়ালে। অর্থাৎ যদি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় তিনটি হাতি আপনাকে চেপে ধরে তাদের দাতের মাঝখানে তাহলে এমনটা মনে হবে।

তার পরেও এদের মধ্যে চ্যাম্পিয়ন হলো ব্ল্যাক পিরানহা। কেন তা কি আপনি জানেন? কারণ ডাইনোসর কাউকে কাটার জন্য তাদের শরীরের ওজনের সমান ফোর্স ব্যবহার করত?

আর  মেঘলাডন তাদের শরীরের টোটাল ওজনের পাঁচ গুণ কম ফোর্স ব্যবহার করত কোন কিছুকে কাটার জন্য। আর ব্ল্যাক পিরানহা তাদের শরীরের ওজনের 30 গুণ বেশি ব্যবহার করে কোন কিছুকে কাটার জন্য।

তবে এটা কেউ বলতে পারে না এরা কিভাবে এত ফোর্স ব্যবহার করে কোন কিছুতে কাটার জন্য। যেগুলো কিনা অনেক শত শতাব্দী বছর পূর্বে হিস্টোরিক্যাল মনস্টার ডাইনোসরের চেয়েও ভয়ঙ্কর।

আমি আপনাদের এগুলো কেন বলছি? পিরানহা তো শুধু সাউথ আমেরিকা, অ্যামাজনের নদী ও ব্রাজিলের পাওয়া যায়। ওইখান থেকে পিরানহা আমাদের দেশে আসা একেবারে অসম্ভব।

ঠিক বলেছি না। কিন্তু একদল অসাধু ব্যবসায়ী এটা সম্ভব করেছে। পিরানহা কে যেকোন দেশে ইমপোর্ট করা ইলিগ্যাল। এটার জন্য সরকারের অফিশিয়াল পারমিশন লাগবে।

কারণ যেখানে পিরানহারা থাকবে সেখানে জীব-বৈচিত্র থাকেনা। জীব-বৈচিত্র উদাহরণস্বরূপ আমরা বলতে পারি আমরা যদি বাংলাদেশের কোন নদীতে ব্ল্যাক পিরানহা ও রেড বেলি পিরানহা ছেড়ে দেই।

আর ওই নদীতে আমাদের দেশের দেশীয় মাছ বসবাস করে তাহলে কয়েক বছরের মধ্যে পিরানহা ওই নদীর সব দেশীয় মাছ খেয়ে ফেলবে আর নদীতে শুধু পিরানহা বসবাস করবে।  আর যদি এমন হয় দেশীয় মাছ গুলো শুধু ওই নদীতে পাওয়া যায় তাহলে এই মাছগুলো দেশ থেকে একেবারে বিলীন হয়ে যাবে। আর এই কারণেই একুরিয়ামে পিরানহার সাথে অন্য মাছ রাখা যায়না।

কিন্তু কয়েকজন অসাধু ব্যবসায়ী ব্রাজিল কিংবা অ্যামাজনের নদী থেকে পিরানহা বিভিন্ন দেশে ইমপোর্ট করছে। আর বর্তমানে এটা বেড়েই চলছে। বর্তমানে আমাদের দেশে অনেক জায়গায় পিরানহা মাছ  বাজারে বিক্রি করা হয়। এদের মধ্যে রেলি পিরানহার সংখ্যা বেশি। এরা প্রয়োজন পড়লে সব কিছু খেয়ে ফেলতে পারে। এমন অনেক খবর পাওয়া গেছে যেখানে রেট বেলি পিরানহার আক্রমণে মানুষের মৃত্যু হয়েছে।

বিভিন্ন জায়গায় জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানিয়েছেন এই মাছ তাদের বাজারে সব সময় বিক্রি করা হয়। অনেক জায়গায় এটাকে রূপচাঁদা মাছও বলা হয়। ইন্টারনেটে এমন অনেক ভিডিও ছবি আছে যেখানে  রূপচাঁদা মাছ ভেবে মানুষ এটার সাথে সেলফি তুলছে ও মজা করছে। আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ইন্ডিয়ায় বিভিন্ন ওয়েবসাইটে বিশ টাকা থেকে শুরু করে 300 টাকায় পিরানহা মাছ বিক্রি করা হয়।

  আর তারা মনে করেন এই মাছ একুরিয়ামে রাখলে একুরিয়াম কালারফুল মনে হয়। আর এই মাছ কে বেশি পরিচর্যা করা হয় না। এরা খুব খারাপ পরিস্থিতিতে বেঁচে থাকতে পারে।

এটা কোন মজার বিষয় নয় আমি শুরুতেই বলেছি পিরানহা অনেক ভয়ঙ্কর মাছ। এরা মানুষ ও দেশীয় মাছের জন্য খুবই বিপদজনক। যদি আমাদের দেশে পিরানহার সংখ্যা বেড়ে যায় তাহলে আমাদের জীব  বৈচিত্র্য অনেক কমে যাবে। আর এতে মানুষের উপর আক্রমণ অনেক বেড়ে যাবে।

কিন্তু যত দিন জেলে ও একুরিয়াম মালিকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে না পরবে ততদিন  আমাদের কিছুই করার নেই। শুধু একটা জিনিসই করার আছে যদি আপনাকে কোন পিরানহা ধাওয়া করে তাহলে আপনি কি করবেন? সত্যি কথা বলতে আমি জেলে না এটা জানার জন্য আমাদের একজন ছেলের কাছে যেতে হবে। jeremy wade  একজন বায়োলজিস্ট ও স্পেশাল ফিশারম্যান।

তিনি অ্যামাজনের নদীতে অনেক বছর পিরানহা মাছের সাথে খেলা করেছেন।  উপরের ছবিতে উনি যে জায়গায় মাছ ধরেছেন ওই জায়গায় যতগুলো মাছ ধরেছেন সব রেট বেলি পিরানহা।

 অর্থাৎ এই জায়গা সম্পূর্ণ পিরানহা দিয়ে ভর্তি। উনি সেইখানে লাফিয়ে পরেন।

এবার একটু জেনে আসি তার জায়গায় যদি আপনি লাফ দিতেন তাহলে কি হতো আপনি যদি কোন নদী বা ডোবায় লাভ দেন আর তারপরে জানতে পারেন এখানে পিরানহা রয়েছে তাহলে আপনি কি করবেন?

হয়তো আপনি পালানোর চেষ্টা করবেন। কিন্তু পিরানহা সবচেয়ে বেশি এগ্রেসিভ হয়ে যায় পানি নড়াচড়া করলে। সাঁতার কাটার সময় পানির যে শব্দ হয় সেটাতে পিরানহা সবচেয়ে বেশি এগ্রেসিভ হয়ে যায়।

আর তারপরে হয়তো একটা পিরানহা আপনাকে কামড় দেবে। আপনি চিৎকার করবেন, পালানোর চেষ্টা করবেন তখন পিরানহা তাদের আরেকটি উপায় ব্যবহার করবে।

তাহলো কমিউনিকেশন স্কিল। রির্সাচ করে জানা গেছে রেড ফেলি পিরানহা 3 ধরনের আওয়াজ বের করে।

১. ভিডিও তে শুনুন

এই আওয়াজ তারা তখন বের করে যখন একটা পিরানহা আরেকটি পিরানহা কে বলে তার কাছ থেকে দূরে যেতে।

২। ভিডিও তে শুনুন

  এই আওয়াজ তারা অন্য জীবের উপর অ্যাটাক করার সময় বের করে উদাহরণস্বরূপ আপনাকে যখন একটা পিরানহা কামড় দেবে তখন আপনি পানিতে চিৎকার শুরু করবেন নিজেকে বাঁচানোর  চেষ্টা করবেন আর তখনই পিরানহা এই শব্দ করবে আর কয়েক সেকেন্ডের ভিতর ওই জায়গায় অনেক পিরানহা জমা হয়ে যাবে আপনাকে খাওয়ার জন্য।

৩. ভিডিও তে শুনুন

এই আওয়াজ পিরানহা তখন বের করে যখন পিরানহা অনেকক্ষণ যাবত কোন কিছু খেতে পায়না। আর তখন গ্রুপের সবচেয়ে দুর্বল পিরানহার উপর সবাই মিলে আক্রমণ করে তাকে খাওয়ার জন্য।

তাহলে আপনার কাছে বাঁচার জন্য মাত্র দুইটি উপায় রয়েছে।

আপনি যদি পানিতে বসে জানতে পারেন এখানে পিরানহা রয়েছে তাহলে আস্তে করে পানির মধ্যে দিয়ে সাঁতার কেটে বাইরে চলে আসুন  যাতে পানিতে splashing না হয় আর নয়তো পানির মধ্যে থাকুন তবে Splashing করা যাবে না।

আর দ্বিতীয়টি হলো পানির মধ্যে যাওয়ার পর যদি কোনো পিরানহা আপনাকে কেটে ফেলে তখন চিৎকার করলে সিচুয়েশন আরো খারাপ হয়ে যাবে সাহায্য পৌঁছানোর পূর্বেই আপনার বাবা অন্য কিছু  পিরানহা কেটে ফেলবে সর্বপ্রথম পিরানহা পায়ের আংগুল কাটে। তাহলে আপনাকে যদি একটি পিরানহা কেটে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার রক্ত পানিতে মিশে গেছে কমিউনিকেশন স্কিল ছাড়াও  পিরানহা রক্তে অনেক বেশি আকৃষ্ট হয়। আর তাই ওই অবস্থায় যদি আপনি কোন জায়গায় দাঁড়িয়ে চিৎকার করেন তাহলে আপনার ক্ষতি বেশি হবে। এর চেয়ে যত দ্রুত সম্ভব ওই জায়গা থেকে বেরিয়ে আসুন।

আজ পর্যন্ত এমন যত ঘটনা দেখা গেছে সেখানে প্রাপ্ত বয়স্কদের চেয়ে বেশি বাচ্চাদের ক্ষতি করেছে। কারণ বাচ্চারা অনেক বেশি হইচই করে।  অনেক বেশি Splashing করে আর একটা পিরানহা কেটে ফেললে বাচ্চারা পালিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে অনেক বেশি চিৎকার করে।

তাহলে আশা করছি অবশ্যই পানিতে নামলে  এখন থেকে সাবধানতা অবলম্বন করবেন।  কারণ  যেহারে বাজারে পিরানহার আমদানি বাড়ছে হতেও পারে আমাদের নদ-নদী খাল-বিল একদিন এই রাক্ষস দ্বারা পরিপূর্ণ হয়ে যাবে।

Leave a Comment